Google Ads

গ‍্যাস সিলিন্ডারের মতো বিদ‍্যুতের ভর্তুকিও সরাসরি ব্যাংক একাউন্টে ডুকবে

গ‍্যাস সিলিন্ডারের মতো বিদ‍্যুতের ভর্তুকিও সরাসরি ব্যাংক একাউন্টে ডুকবে


নিজস্ব সংবাদদাতা: রান্নার গ্যাসে যেমন ভর্তুকির টাকা ব্যাংকে জমা হয়ে যায় সেইরকম বিদ্যুতের বিলে যে ভর্তুকি থাকবে সেটি গ্রাহকদের ব্যাংক একাউন্টে জমা করে দেবে রাজ্য সরকার। কেন্দ্রীয় সরকার বিদ্যুৎ বিল 2020 র একটি খসড়া অনুমোদন করেছে, এতে বলা হয়েছে রান্নার গ্যাসের মত বিদ্যুতের ভর্তুকিও সরাসরি গ্রাহকদের একাউন্টে পাঠানো হবে। ফলে বিদ্যুতের দাম বাজারে যা আছে সে দামে গ্রাহকদের বিল জমা দিতে হবে। এর মধ্যে যারা ভর্তুকি পাওয়ার যোগ্য তাদের ব্যাংক একাউন্টে ভর্তুকি টাকা পৌঁছে দেবে সংশ্লিষ্ট রাজ্য সরকার। এই বিলে বলা হয়েছে সরকার কোন রকম বন্টন সংস্থাকে ভর্তুকির টাকা দেবে না। গ্রাহকদের বিদ্যুতের অফিস এবং ব্যাংকে গিয়ে ফরম ফিলাপ করে জমা দিতে হবে। এ রাজ্যে সিইএসি এলাকায় মাসে 25 ইউনিট পর্যন্ত, পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য বিদ্যুৎ বন্টন সংস্থা অঞ্চলে প্রতিমাসে 300 মিনিট পর্যন্ত বিদ্যুতের বিল ভর্তুকি দেয় রাজ্য সরকার। বর্তমানে ভর্তুকি বাবদ যে অর্থ তা সরাসরি বন্টন সংস্থাকে দেয় সরকার। এরপর সংস্থাগুলি সেই অনুসারে কম বিদ্যুৎ ব্যবহার করে গ্রাহকদের ভর্তুকি সুবিধা দেয়। তবে এ রাজ্যে অতোটা মাশুল বাড়ার সম্ভাবনা নেই। কারণ পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য বিদ্যুৎ নিয়ন্ত্রণ কমিশন এর আগে থেকেই ক্রস সাবসিটি ধীরে ধীরে কমিয়ে এনেছে বলে জানিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা। তাদের বক্তব্য বর্তমানে সিইএসসি এলাকায় প্রতি ইউনিট বিদ্যুৎ 7 টাকা 30 পয়সা এরপর যদি সাবসিটি উঠে যায় তাহলে প্রত্যেক বিদ্যুৎগ্রাহককে ইউনিট প্রতি ওই পরিমাণ মাসুল দিতে হবে। কিন্তু যে সমস্ত বাড়িতে খুবই কম ইউনিট বিদ্যুৎ ব্যবহার করা হবে সেই সমস্ত বাড়িগুলি তার দ্বিগুণ মাসুল বাড়বে। আর বাকি গ্রাহকদের বাড়তে পারে 10 থেকে 12 শতাংশ। বাড়বে
Source:www.news365bangla.in

Post a Comment

0 Comments