Google Ads

মাধ্যমিক ও উচ্চ-মাধ্যমিক এর কিছু ঘোষণা


কলকাতা, নিজস্ব সংবাদদাতা : অন্যান্য বছরের তুলনায় এবছরটা যে কিছুটা আলাদা, তা নিয়ে কোনো সন্দেহই নেই। Covid-19 নামে এক ভাইরাস সংক্রমন এর কারণে সারা দেশের প্রতিটা জায়গায় প্রতিটা পদক্ষেপ এ নানারূপ প্রভাব পড়েছে। পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যেও তার ব্যাতিক্রম নই। 

ভাইরাস-সংক্রমন এর কারণে প্রতি বছরের মতো স্বাভাবিক হয়নি এবছরের মাধ্যমিক ও উচ্চ-মাধ্যমিক পরীক্ষা। মাধ্যমিক পরীক্ষা কোনোরকম শেষ হলেও, রাজ্যের করোনা পরিস্থিতি মোকাবিলা করার উদ্দেশ্যে উচ্চ-মাধ্যমিক পরীক্ষা মাঝ পথেই বন্ধ করে দেওয়া হয়। সাইন্স,কমার্স, আর্টস কমবেশি সকল ছাত্র-ছাত্রীদেরই ১-২টে আবার কারো-কারো ৩টে করে পরীক্ষা বাকি রয়ে গেছিলো। নতুন করে পরীক্ষা চালু নিয়ে ইতিমধ্যেই অনেকগুলো ঘোষণা করে পশ্চিমবঙ্গ মধ্যশিক্ষা পর্ষদ। 

গত বৃহস্পতিবারও বেশ কয়েকটা ঘোষণা করেছে রাজ্যের শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়।এই ঘোষণা গুলির মধ্যে উচ্চ-মাধ্যমিক এর বাকি পরীক্ষা এবং মাধ্যমিক এর রেজাল্ট নিয়ে কিছু কথা বলেন তিনি।
১) উচ্চ-মাধ্যমিক এর স্থগিত করা পরীক্ষা গুলোর দিন ঘোষণা করল পর্ষদ। ২৯ জুন, ২ জুলাই এবং ৬ জুলাই বাকি পরীক্ষা গুলো নেওয়া হবে এমনই জানালেন শিক্ষামন্ত্রী।
২) পরীক্ষার দিন ঘোষণার সাথে সাথে শিক্ষামন্ত্রী আরো বলেদেন যে করোনা পরিস্থিতি মোকাবিলার জন্য বেশকিছু বিধি মেনে আসতে হবে সকলকে। মাস্ক ও স্যানিটাইজার বাধ্যতামূলক করা হয়। এছাড়াও সকল শিক্ষার্থীদের মধ্যে দূরত্ব বজায় রাখার জন্য প্রতি বেঞ্চে একজন করে শিক্ষার্থী বসার কথাও তিনি বলেন। 
৩) আগস্ট মাসে ফলপ্রকাশ হবে উচ্চ-মাধ্যমিক পরীক্ষার এমনেই ইঙ্গিত দেন শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়। তিনি বলেন ৬ জুলাই এর মধ্যে বাকি পরীক্ষা গুলো শেষ করতে পারলে, আপ্রাণ চেষ্টা করে হলেও ১ মাস এর মধ্যেই ফল প্রকাশ হবে উচ্চ-মাধ্যমিক পরীক্ষার। 
৪) যেহেতু মাধ্যমিক পরীক্ষা উচ্চ-মাধ্যমিক এর আগে হয়েছে এবং প্রতিবছর মাধ্যমিক পরীক্ষার ফলপ্রকাশ আগে হয় তাই মাধ্যমিক রেজাল্ট আগেই বেরোবে বলে শিক্ষামন্ত্রী জানিয়ে দেন। তিনি আরও বলেন, মাধ্যমিক পরীক্ষার ফলপ্রকাশ এর প্রস্তুতি পুরোদমে চলছে। শীঘ্রই সে বিষয় জানানো হবে। 
৫) রাজ্যে করোনা এর কঠিন পরিস্থিতি মোকাবিলার জন্য সব স্কুল-কলেজ মার্চ মাস থেকে বন্ধ রয়েছে। ৩০ জুন পযন্ত রাজ্য স্কুল-কলেজ বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছিল। ৩০ জুন এর পর পরিস্থিতি বিবেচনা স্কুল খোলার ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেবে পর্ষদ।
অন্যান্য বছরের তুলনায় এবছর পরীক্ষা হওয়াই এবং ফলপ্রকাশ এ দেরি হওয়ার কারণ এ শিক্ষাবর্ষে অনেক সমস্যা আসতে পারে যেমন ভর্তি সম্পর্কিত এবং পড়া চালু জনিত সমস্যা। এ পরিস্থিতি মোকাবিলা করতে হয়তো একটা শিক্ষাবর্ষ পুরোপুরি পেছানো হতে পারে। সে বিষয়ে যদিও এখনো সেরকম কোনো ঘোষণা করা হয়নি।

Post a Comment

0 Comments