Google Ads

কেন্দ্রীয় কর্মী নিয়োগের ক্ষেত্রে নতুন ঘোষণা, CET কী

 কেন্দ্রীয় কর্মী নিয়োগের ক্ষেত্রে নতুন ঘোষণা, CET কী

কলকাতা, নিজস্ব সংবাদদাতা: কর্ম নিয়োগের ক্ষেত্রে সুবিধা এবং দ্রুত কাজ সেরে ফেলার জন্য কেন্দ্রীয় সরকার দ্বারা নিয়ে আসা হয়েছে সিইটি অর্থাৎ কমন এলিজিবিলিটি টেস্ট। চলতি বছরে ১লা ফেব্রুয়ারি কেন্দ্রীয় বাজেট বক্তৃতায় অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারামন এই প্রস্তাবটি ঘোষণা করেছিলেন। কেন্দ্রীয় মোদি সরকার দ্বারা এই প্রস্তাবটির গৃহীত হয়েছে। বুধবার কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভা ন্যাশনাল রিকোয়ারমেন্ট এজেন্সি বা জাতীয় নিয়োগ এজেন্সি তৈরীর পরিকল্পনা গ্রহণ করে। এবার থেকে কমন এলিজিবিলিটি টেস্ট এর মাধ্যমে যে কোন কেন্দ্রীয় নিয়োগের পরীক্ষায় নেবে এই সংস্থা।


মন্ত্রিসভা থেকে নেওয়া এই সিদ্ধান্তে অনেক লাভজনক সিদ্ধান্ত বলে বিবেচিত হতে পারে। যদিও এক্ষেত্রেও কারো কারো দ্বিমত দেখা গেছে। বুধবার দিন এই সিদ্ধান্ত ঘোষণা করেন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী প্রকাশ জাভেদকার। ব্যাংক, রেল কিংবা স্টাফ সিলেকশন এই তিনটি পরীক্ষা কে একত্রিত করে সিইটি করা হয়েছে। নতুন নিয়ম এর মাধ্যমে ব্যাংক, রেল কিংবা স্টাফ নিয়োগের ক্ষেত্রে প্রথম স্তরের পরীক্ষা নেওয়ার প্রয়োজন হবে না। তবে চূড়ান্ত প্রার্থী বাছাই হবে দ্বিতীয় ও তৃতীয় স্তরের পরীক্ষার মাধ্যমে।


 সিইটি অর্থাৎ কমন ইলিজিবিলিটি টেস্ট এই পরীক্ষার্থীর রেজাল্ট বেরোনোর পর সেই রেজাল্টের ভ্যালিডিটি থাকবে পরবর্তী তিন বছর পর্যন্ত। এই তিন বছরের মধ্যে উত্তীর্ণ পরীক্ষার্থীদের যেকোনো কেন্দ্রীয় নিয়োগের ক্ষেত্রে আবেদন করতে পারেন।  কোনো পরীক্ষার্থী সন্তুষ্টজনক না হয় তাহলে তিনি একাধিক বার পরীক্ষা দিতে পারবেন এবং সর্বোচ্চ নাম্বার কে বিবেচনা করা হবে।


এতদিন পর্যন্ত সমস্ত সরকারি চাকরির পরীক্ষার্থীরা কেবল মাত্র দুটি বাসে পরীক্ষা দিতে পারত। কিন্তু নয়া ঘোষণাতে জানিয়ে দেওয়া হয় এখন থেকে বারটি ভাষায় পরীক্ষা দিতে পারবে চাকরি পরীক্ষার্থীরা। সিইটি চালু হওয়ার ফলে রিক্রুটমেন্ট এজেন্সি, পরীক্ষার্থীদের সময়ও খরচ উভয় বাঁচবে। রাজ্য সরকারের চাকরির নিয়োগের জন্য ব্যয় ভাগের ভিত্তিতে সিইটি রাজ্যগুলির হাতে তুলে দিতে পারে এনআরএ মেরিট লিস্ট এর তালিকা।


এখনো পর্যন্ত জানা যাচ্ছে 2021 সাল থেকেই সি আই টি এর পরীক্ষা নেওয়া শুরু হয়ে যাবে। সাধারণ ভাষায় এই পরীক্ষার মাধ্যমে নন-গেজেটেড বিভাগ অর্থাৎ গ্রুপ সি ও গ্রুপ বি এর ক্ষেত্রে কর্মী নিয়োগ করা হবে। বর্তমানে এই তিন খাতে প্রতি বছর প্রায় ১ লক্ষ ২৫ হাজার সরকারি পদের জন্য পরীক্ষা গ্রহণ করা হয়। আনুমানিক ২.৫ কোটি পরীক্ষার্থী ফি বছর আবেদন করেন বলে কেন্দ্রীয় তথ্য অনুসারেই জানা যাচ্ছে।


কেন্দ্রের তরফে আরও জানানো হয়েছে, প্রাথমিকভাবে তিনটি এজেন্সি থেকে এই অভিন্ন পরীক্ষা হবে। পরবর্তীকালে সব ২০ টি এজেন্সিকে সেই আওতায় আনা হবে। তবে শুধু কেন্দ্রের সব এজেন্সি নয়, রাজ্য সরকারগুলিও ‘কমন এলিজিবিটি লিস্ট’ ব্যবহার করতে পারে বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রীর দফতরের রাষ্ট্রমন্ত্রী।


Post a Comment

0 Comments