Google Ads

রাজ্যের কর্মচারী বা ছাত্র হলে রাজ্যের এই বিশেষ ঘোষণা গুলি দেখুন

রাজ্যের কর্মচারী বা ছাত্র হলে রাজ্যের এই বিশেষ ঘোষণা গুলি দেখুন


কলকাতা, নিজস্ব সংবাদদাতা: রাজ্যে একধারে করোনা সংক্রমণ আর প্রতিদিন কোনো না কোনো নিম্নচাপ আর কিছু না কিছু লেগেই আছে। সেসব থেকে সরে এসে এখন আনলক ১ চলছে। আনলক ১ চলাকালীনও প্রায় প্রতিদিনই কোনো না কোনো ঘোষণা করেই চলেছেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায়। তিনি এখনকার সময়ে কার্যরত শুরু হওয়াই শ্রমিক এবং কর্মীদের নিয়ে কিছু কথা বলেন। তাঁদের আসা যাওয়া সমস্যা সংক্রান্ত  আগেই কয়েকটা বিষয় যেমন সাইকেল এর কথা বলেছেন তিনি কিন্তূ এখন আরো বিশেষ কিছু ঘোষণা করেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায়। 

সংক্রমণ যে ভাবে বেড়ে চলেছে সে দিকে লক্ষ্য করে অবিভাবকরা ছেলেমেয়েদের বিদ্যালয় এ পাঠাতে নারাজ। এমনিতে রাজ্য সরকার এর ঘোষণা অনুযায়ী ৩০ জুন এর পর স্কুল ও কলেজ খোলার কথা ছিল। কিন্তূ পরিস্থিতি এর উপর নজর দিয়ে এখন সে বিষয়েও কিছু ঘোষণা করা হয়। আর ৩০ জুন যদি স্কুল না খুলে তাহলে রাজ্যে আটকে থাকা উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষা এর কি হবে। সে সব বিষয় নিয়ে কিছু গুরুত্বপূর্ণ ঘোষণাবলী নীচে সংক্ষেপে দেওয়া হলো -

১) লকডাউন খোলা হলেও এখনও সব কিছু স্বাভাবিক হয়নি। যাতাযাত ব্যবস্থাতেও কিছু সমস্যা থেকে যাওয়ায় এবং সংক্রমণ এড়ানোর জন্য আগেই শ্রমিকদের সাইকেল এ করে আসার অনুমতি দেন তিনি। কিন্তূ এখন হাজিরা নিয়ে তিনি কিছুটা সহানুভূতি দেখান। এখন হাজিরা এর সময়ে ১ ঘন্টা পযন্ত ছাড় দেওয়া হয়। কেননা অনেক জায়গাতেই কর্মীরা পর্যাপ্ত যানবহন পাননি। 

২)  কলকাতা পুরসভার কর্মীদের অফিসে পৌঁছতে সময় দেখা দেওয়াই, পরিবহন দপ্তরের সঙ্গে কথা বলেন তিনি। সিদ্ধান্ত অনুযায়ী একদিকে বান্ডেল এবং অন্যদিকে বারাকপুর থেকে কলকাতা বাস চালানো হচ্ছে। এছাড়াও আরো কিছু বিশেষ জায়গা থেকে বাস চালানোর কথা বলা হয়েছে যেমন-বারুইপুর, ডায়মন্ডহারবার ইত্যাদি। 

৩) রাজ্য সকারের কর্মচারীদের দুটো শিফ্ট এ কাজের কথা বলেন তিনি। রাজ্য সরকারে কর্মচারীরা সাধারণত একটা সিফটেই কাজ করেন। সকাল ১০:৩০ থেকে ৫:৩০ পয্যন্ত এই সময়সীমা চলে। কিন্তূ এখন এই দুটি শিফ্ট চলবে। একটি  হবে সকাল ৯:৩০ থেকে দুপুর ৩ টা অব্দি। আর ওপরটি হবে বেলা ১২ টা থেকে বিকাল ৫:৩০ অব্দি। 

৪)  বিভিন্ন দিক থেকে পরিস্থিতি আরও খারাপ এর পথে এগোতে থাকায়। আজকে নবান্ন এ মুখ্যমন্ত্রী ঘোষণা করেন জুলাই মাসেও স্কুল খুলবেনা।

৫) স্কুল না খুললেও উচ্চমাধ্যমিক এর বাকি পরীক্ষা গুলোর নেওয়া হবে বলে জানিয়েদেন তিনি। 

৬) মধ্যবিত্ত এবং সাধারণ লোকেদের কথা মাথায় রেখে তিনি বেসরকারি স্কুলগুলোর উদ্দেশ্যে অনুরোধ করে বলেন এবছর জানো ফিস টা না বাড়ানো হয় কারণ এরকম পরিস্থিতিতে কারো হাতে টাকা কড়ি নেই। 

Post a Comment

0 Comments