Google Ads

5G এর সম্পর্কিত সমস্ত তথ্য। ভারতে কবে আসবে 5G

5G এর সম্পর্কিত সমস্ত তথ্য। ভারতে কবে আসবে 5G



কলকাতা, নিজস্ব সংবাদদাতা : ভারতকে ডিজিটাল ইন্ডিয়ানতে পরিণত হতে গেলে ইন্টারনেট এর গুরুত্ব যে কতোটা সে বিষয়ে কোনো সন্দেহ নেই। বর্তমানে ভারতে 4G নেটওয়ার্ক চালু রয়েছে কিন্তূ খুব শীঘ্রই আসতে চলেছে 5G নেটওয়ার্কও। এবার সকলের মনে কিছু প্রশ্ন থেকেই যায়, যেমন কিরকম হবে এই নেটওয়ার্ক সিস্টেমটি। কিভাবেই বা কাজ করবে। কেনইবা 5G নেটওয়ার্ক? 5G আসতে এতো দেরি হচ্ছে কেন? G কথার অর্থ কি? কোথা থেকে 5G এর সূচনা?  ইত্যাদি ইত্যাদি। 


G এর মানে কি? 

G কথার অর্থ হলো জেনারেশন। এক পর্যায় থেকে অন্য পর্যায়ে পরিবর্তনকে চিন্নিত করার জন্য জেনারেশন শব্দটি ব্যাবহৃত হয়। মোবাইল নেটওয়ার্ক এর প্রথম পর্যায় হলো 1G অর্থাৎ 1st জেনারেশন। দ্বিতীয় পর্যায় হলো 2G অর্থাৎ 2nd জেনারেশন। এইভাবে ক্রমে ক্রমে আমরা এখন 4G বা 4th জেনারেশন এ বসবাস করছি এবং দ্রুততার সঙ্গে এগিয়ে চলেছি 5th জেনারেশন বা 5G নেটওয়ার্ক এর দিকে। 

5G নেটওয়ার্ক কি?  

5G হচ্ছে উন্নত প্রযুক্তির ওয়্যারলেস নেটওয়ার্ক যা 2018 এবং এর পরবর্তী সময় প্রণিত হবে. প্রাথমিকভাবে 5G তে অন্তর্গত প্রযুক্তির মধ্যে রয়েছে: মিলিমিটার তরঙ্গ ব্যান্ডের প্রণয়ন (26, 24, 38 এবং 60 গিগাহার্টজ) যা প্রতি সেকেন্ডে 20 গিগাবিট (গিগাবাইট/ সেকেন্ড) গতি প্রদানে সক্ষম; বৃহৎ পরিসরের এমআইএমও (মাল্টিপল ইনপুট মাল্টিপল আউটপুট - 64-256 অ্যান্টেনা) যা 4G এর ন্যূনতম 100x বেশি কর্মক্ষমতা প্রদানে সক্ষম। 


5G নেটওয়ার্ক এবং বাকি নেটওয়ার্ক। কেনই বা 5G নেটওয়ার্ক? 

1981 সালে নেটওয়ার্ক ব্যাবস্থার সূচনার মাধ্যমে 1G নেটওয়ার্ক প্রতিস্থাপন করা হয়। এতে এনালগ সিগন্যাল ব্যবহার করা হয়েছিল। এর মাধমে শুধু মাত্র কথা বলাই যেত। তারপর ধীরে ধীরে আমরাও অগ্রসর হয় 2G নেটওয়ার্ক এর দিকে, যেখানে email, radio, স্লো ইন্টারনেট সার্ভিস এর মেল পাওয়া যায়। এরপর নেটওয়ার্ক ব্যবস্থা আরও উন্নত করে প্রতিস্থাপন করা হয় 3G নেটওয়ার্ক এর। যেখানে ইন্টারনেট ব্যাবস্থা আরও বেশি ক্ষমতাবান হয়ে ওঠে। আর 4G নেটওয়ার্ক এ এটি এক মূল্যায়ন লাভ করে। তবে 5G নেটওয়ার্ক প্রতিষ্ঠিত হওয়ার পর ইন্টারনেট ব্যবস্থা সবার শীর্ষে পৌঁছবে বলে বলা যাই। 

বর্তমান 4G নেটওয়ার্ক এ আমরাও দ্রুত নেটের কাজ সম্পন্ন করি কিন্তূ অনেক ক্ষেত্রে এখানে নেটওয়ার্ক ইস্যু এবং বাফারিং এর মোকাবিলা করতে হয়। কিন্ত 5G নেটওয়ার্ক প্রতিষ্ঠিত হলে দ্রুততার কোনো প্রশ্নই উঠবেনা। হিসেব অনুযায়ী দেখা যায় বর্তমান নেটওয়ার্ক এর তুলনায় এটি অনেক বেশি দ্রুত গতি সম্পন্ন হবে। বর্তমান নেটওয়ার্ক এ যদি কোনো 1.5Gb মুভি ডাউনলোড করতে 26 মিনিট সময় লেগে থাকে সেই মুভিটিই 5G নেটওয়ার্ক এ মাত্র 3.5 সেকেন্ড এ ডাউনলোড করা যাবে। 

5G নেটওয়ার্ক এ রেসপন্স টাইমও অত্যন্ত কম হবে। বর্তমান নেটওয়ার্ক এর রেসপন্স টাইম গড়ে 50-100 মিলি সেকেন্ড। মানে প্রায় চোখের পলক ফেলার সময়ের সমান। হিউমান রেসপন্স টাইম 300 মিলি সেকেন্ড। আর 5G নেটওয়ার্ক এর রেসপন্স টাইম হবে 300-400 মিলি সেকেন্ড। যা এই পযন্ত সবথেকে সবল নেটওয়ার্ক নামে পরিচিত হতে চলেছে। 

5G নেটওয়ার্ক ব্যবস্থা এসে গেলে ইন্টারনেট ব্যবস্থাই যথেষ্ট উন্নতি হবে। একই সংঙ্গে অটো ভাইকেল, সেলফ কন্ট্রোলিং মেশিন এর ব্যাবহারও অত্যন্ত বেড়ে যাবে, যা মানব সভ্যতা এর অগ্রগতি ডেকে আনতে সক্ষম। 


ভারতে 5G আসতে এতো দেরি কেন হচ্ছে এবং আনুমানিক কবে 5G আসবে?  

5G নেটওয়ার্ক এর অনেক সুবিধা থাকলেও এর কতগুলো অসুবিধার দিকও রয়েছে যেমন প্রচুর পরিমানে  অপটিক কেবিল ব্যবহার করতে হবে এবং যার জন্য পুরো দেশে সেগুলোর প্রতিস্থাপন করতে হবে। প্রায় 10 কোটি কিলোমিটার এ অপটিক কেবিল বসানোর প্রয়োজন। ইতিমধ্যেই এর কাজে লেগে পড়েছে সব দিক থেকে। বর্তমানে করিয়া এবং জাপানে 5G নেটওয়ার্ক এসে গেছে। এর পরপরই আমাদের আশেপাশের দেশে গুলোতসহ ভারতে আসতে চলেছে এই নেটওয়ার্ক ব্যবস্থা। 

দেশজুড়ে বর্তমানে দেড় কোটি কিলোমিটার অপটিকাল ফাইবার আছে। ২০২২ সালের মধ্যে বর্তমানের তুলনায় প্রায় পাঁচ গুণ বেশি, অর্থাত্ সাড়ে সাত কোটি কিলোমিটার অপটিকাল ফাইবারের নেটওয়ার্ক গড়ে তোলার লক্ষ্যে টেলিকম মন্ত্রক। একই সঙ্গে রয়েছে ৬০ শতাংশ টাওয়ারকে এই নেটওয়ার্কে যুক্ত করার লক্ষ্য। বর্তমানে দেশের মাত্র ২২ শতাংশ টাওয়ার যুক্ত ফাইবার নেটওয়ার্কে। তবে সবকিছু ঠিক থাকলে 2022 সালেই ভারতে 5G নেটওয়ার্ক এসে যাবে বলে ধারণা পাওয়া যাচ্ছে।

Post a Comment

0 Comments