Google Ads

N95 মাস্ক কারা ব্যবহার করবেন, কেন করবেন

N95 মাস্ক কারা ব্যবহার করবেন, কেন করবেন
কলকাতা, নিজস্ব সংবাদদাতা: করোনা ভাইরাস দেশের ধীরে ধীরে যত বিস্তার লাভ করছে এবং গবেষণা যত এগিয়ে চলেছে সেই অনুযায়ী প্রতিদিনই প্রায় নতুন বৈশিষ্ট্য লক্ষ্য করা যাচ্ছে এই ভাইরাসের মধ্যে।  এ বিষয়ে জানা যাচ্ছে আরো নিত্যনতুন অনেক কথা। করোনার ভ্যাকসিন এবং নতুন উপসর্গ কথা তো আমরা রোজই কোনো না কোনো খবরের মাধ্যমে জানতে পারছি।  আর প্রতিনিয়ত ঐ কিছু-না-কিছু নির্দেশাবলী জারি হচ্ছে হু সংস্থা এবং কেন্দ্রীয় শাস্ত্র মন্ত্রকের তরফ থেকে।

বেশ কিছুদিন আগে হু সংস্থা এর তরফ থেকে জানিয়ে দেওয়া হয়েছিল যে, সব ধরনের মাস্ক না পরলেও ত্রিস্তরীয় মাস্ক পরলেই মোটামুটিভাবে করোনা রোধ করা যেতে পারে। আর এই মাস্ক বাড়িতে বানিয়েই ব্যবহার করা যেতে পারে এ সম্পর্কিত কিভাবে বাড়িতে মাস্ক বানাবেন তা নিয়ে উপযুক্ত নির্দেশাবলী দেওয়া হয়েছিল www.mohfw.gov.in ওয়েবসাইটে।

 তবে এর আগে নয় N95 মাস্ক নিয়েই মেতে উঠেছিল জনসাধারণ। এমনকি এখনো বেশ কিছু জনসাধারণের সংখ্যা N95 মাস্ক ব্যবহারের ক্ষেত্রে সরব রয়েছে। কিন্তু সোমবার কেন্দ্রীয় স্বাস্থ মন্ত্রক থেকে স্পষ্ট জানিয়ে দেওয়া হয়েছে যে, ভাল্বযুক্ত N95 মাস্ক সাধারণ মানুষদের ব্যবহার করা বিপদজনক হতে পারে। বাজারের চলতি দামি মাস্ক এর তুলনায় বাড়িতে তৈরী সাধারণ মাস্কই বেশি সুরক্ষিত বলে জানিয়ে দিয়েছে স্বাস্থ মন্ত্রক।

N95 মাস্ক বা N95 রেসপিরেটর হল একটি মুখে দেয়া বস্তুকণা-পরিশোধন রেসপিরেটর যেটি মার্কিন সংস্থা ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট ফর অকুপেশনাল সেফটি অ্যান্ড হেলথ এর বায়ু পরিশোধন N95 এর মানদণ্ড অনুযায়ী তৈরী, যার মানে হল এটির মাধ্যমে অন্তত ৯৫% বালুকণা পরিশোধিত হয়। আর এটি যে পুরোপুরি তেল প্রতিরোধী তা কিন্তু নয়।

কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রক দ্বারা জানানো হয়েছে, ভাল্বযুক্ত N95 মাস্ক এর মাধ্যমে করোনাভাইরাস আটকে থাকতে পারে না। কোন ব্যক্তি যদি করোনাভাইরাস এ আক্রান্ত হয়ে থাকে তাহলে N95 মাস্ক ব্যবহারের মাধ্যমে ভিতর থেকে ভাইরাস বেরিয়ে আসবে। নির্দেশাবলীতে আগেও জানানো হয়েছে এখনো জানানো হয়েছে N95 মাস্ক কেবলমাত্র স্বাস্থ্যকর্মী এবং চিকিৎসকদের ক্ষেত্রেই ব্যবহার করা উপযুক্ত।

অবশেষে যতদিন পর্যন্ত না সফল ভ্যাকসিন আবিষ্কার হচ্ছে এবং পুরোপুরি সংক্রমণ শেষ হচ্ছে ততদিন পর্যন্ত আমাদের একমাত্র উপায় হচ্ছে সোশ্যাল ডিস্ট্যান্স, মাস্ক ব্যাবহার করা এবং ঘন ঘন হাত ধোয়া। কেবলমাত্র এই ধরনের উপযুক্ত প্রক্রিয়াগুলো সম্পাদনের মাধ্যমে আমাদেরকে কোন ভাইরাসের প্রতিরোধ করে যেতে হবে। সোমবার এরকমই মন্তব্য করলেন কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রী হর্ষবর্ধন।

Post a Comment

0 Comments